কেটে বা রস করে খাওয়া তো হয়-ই; আনারস দিয়ে নানা পদ রান্নাও করা যায়। এমন কয়েক পদের রেসিপি দিয়েছেন নাজমা হুদা।

আনারকলি কই
উপকরণ: কই মাছ ৫০০ গ্রাম, আনারসের পাতলা টুকরা আধা কাপ, বেগুনের টুকরা এক কাপ, পেঁয়াজবাটা আধা কাপ, মরিচবাটা এক টেবিল-চামচ, রসুনবাটা এক টেবিল-চামচ, জিরাবাটা এক চা-চামচ, হলুদগুঁড়া এক চা-চামচ, তেল এক কাপ, লবণ স্বাদমতো।
প্রণালি: মাছ, হলুদ ও লবণ একসঙ্গে মাখিয়ে ভেজে নিতে হবে। এবার বেগুন, হলুদ ও লবণ মাখিয়ে ভেজে তুলে নিন। আনারস ও লবণ মাখিয়ে অল্প তেলে ভেজে নিতে হবে। সব ভাজা হয়ে গেলে অন্য একটি পাত্রে তেল-পেঁয়াজ ভেজে লাল হলে সব মসলা ও অল্প পানি দিয়ে কষাতে হবে। মাছ, বেগুন ও আনারস দিয়ে একটু নাড়াচাড়া করে পানি দিয়ে বলক ওঠাতে হবে। মাঝারি আঁচে জ্বাল দিয়ে মাখা মাখা হলে ওপরে ধনেপাতা দিয়ে নামিয়ে নিতে হবে।

পাইনঅ্যাপল আপস অ্যান্ড ডাউনমিটলোফ
উপকরণ: মাংসের কিমা ৫০০ গ্রাম, পাউরুটি দুই পিস টুকরা, আদাবাটা এক টেবিল-চামচ, রসুনবাটা এক টেবিল-চামচ, ডিম একটি, লবণ স্বাদমতো, শুকনা মরিচের গুঁড়া এক চা-চামচ, মিহি পেঁয়াজের কুচি আধা কাপ, বেরেস্তা দুই টেবিল-চামচ, গরম মসলার গুঁড়া এক চা-চামচ, আনারসের সস দুই টেবিল-চামচ, কাঁচামরিচের কিমা এক চা-চামচ, আনারসের টুকরা চার-পাঁচটি, ঘি বা তেল দুই টেবিল চামচ।
প্রণালি: আনারস বাদে সব উপকরণ কিমার সঙ্গে মাখিয়ে এক ঘণ্টা রাখতে হবে। একটি ডিশে ঘি ব্রাশ করে তার ওপর আনারসের টুকরোগুলো বিছিয়ে ওপরে কিমার মিশ্রণ দিয়ে দিন। ওভেনে ১৮০ ডিগ্রিতে ৪০ মিনিট বেক করতে হবে। নামিয়ে পরিবেশন ডিশে ওপর-নিচ করে পরিবেশন করতে হবে। এটি নাশতা হিসেবে খুব মজার খাবার।
সস তৈরি: আনারস কোরানো দুই কাপ, আদাবাটা এক চা-চামচ, লবণ স্বাদমতো, মাখন দুই টেবিল-চামচ, লাল মরিচ দুটি। আনারস ও মরিচ একসঙ্গে ব্লেন্ড করে নিতে হবে। এবার প্যানে মাখন ও আদাবাটা দিয়ে ভেজে ব্লেন্ড করা মিশ্রণ ঢেলে নাড়তে হবে ও বাকি সব মেশাতে হবে। জ্বাল দিয়ে ঘন হলে নামিয়ে নিতে হবে।

আনারস চিংড়ির মালাই কারি
উপকরণ: আনারস মিহি বাটা দুই টেবিল-চামচ, নারকেলের দুধ ঘন আধা কাপ, চিংড়ি ৫০০ গ্রাম, পেঁয়াজকুচি এক কাপ, আদাবাটা এক চা-চামচ, রসুনবাটা এক চা-চামচ, মরিচগুঁড়া এক চা-চামচ, হলুদ সামান্য, লবণ স্বাদমতো, গরম মসলার গুঁড়া এক চা-চামচ, তেল পৌনে এক কাপ।
প্রণালি: কড়াইতে তেল গরম করে পেঁয়াজ দিয়ে হালকা সোনালি রং করে ভাজুন। এবার সব মসলা দিয়ে কষানোর পর আনারসবাটা দিয়ে কষাতে হবে। এরপর চিংড়ি দিয়ে আরও একবার কষাতে হবে। এবার নারকেলের দুধ দিয়ে বলক এলে অল্প আঁচে দমে রাখতে হবে। ওপরে তেল উঠলে নামিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

পাইন চিকেন বল
উপকরণ: মুরগির মিহি কিমা ২৫০ গ্রাম, আদাবাটা এক চা-চামচ, রসুনবাটা এক চা-চামচ, পেঁয়াজের কুচি দুই টেবিল-চামচ, মরিচগুঁড়া এক চা-চামচ, আনারসের কিমা আধা কাপ, কাজুবাদাম-বাটা এক টেবিল-চামচ, হলুদগুঁড়া আধা চা-চামচ, তেল আধা কাপ, মাখন বা ঘি দুই টেবিল-চামচ, লবণ স্বাদমতো, এলাচ দুটি, দারচিনি দুই টুকরা, টমেটো দুটি।
প্রণালি: মুরগির কিমার সঙ্গে আধা চা-চামচ করে আদা, রসুন, এলাচগুঁড়া ও পরিমাণমতো লবণ দিয়ে খুব ভালো করে মেখে ছোট বল তৈরি করে নিন। বলগুলো প্রথমে ভাপিয়ে নিয়ে ঠান্ডা করে রাখতে হবে। পরে ঘি বা মাখন দিয়ে প্যানে হালকা ভেজে নিতে হবে। অন্য একটি পাত্রে তেল দিয়ে পেঁয়াজকুচি একটু বাদামি করে ভেজে তার মধ্যে আনারসের কিমা দিয়ে ভাজতে হবে। একটু পর একে একে সব মসলা দিয়ে কষাতে হবে। দুবার কষানোর পর এক কাপ পানি দিয়ে বলক তুলতে হবে। এবার বলগুলো টমেটো দিয়ে জ্বাল দিতে হবে। বল মাখা মাখা হয়ে ওপরে তেল উঠে এলে নামিয়ে পরিবেশন করতে হবে।

সূত্র: প্রথম আলো, জুন ২১, ২০১১